সর্বশেষ

ও. ইন্ডিজ ক্রিকেটের ক্ষতি করছেন গেইল!

অনলাইন ডেস্ক নিউজ | আপডেট: ০৯:০৬, অক্টোবর ০৭ , ২০১৮

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে একদিনের সিরিজের আগে হঠাৎ করে বোর্ডের কাছে রোহিত শর্মা আবদার করে বসলেন খেলবেন না। এর পরিবর্তে আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগ খেলতে যাবেন। এরকম কি সম্ভব?‌ বোর্ড কি অনুমতি দেবে?‌ অনুমতি তো দূরের কথা, রোহিত নিজেই আবদার করবেন না। ভারত, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দেশে সম্ভব না হলেও, ওয়েস্ট ইন্ডিজে সম্ভব। দেশের হয়ে খেলা নয়, টোয়েন্টি ২০ লিগই ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটারদের কাছে আগে। আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগে খেলার জন্যই ভারতের বিরুদ্ধে একদিনের সিরিজ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন ক্রিস গেইল।

দুই দিন আগেই সাবেক ক্যারিবিয়ান তারকা কার্ল হুপার আক্ষেপ করছিলেন, আইপিএল, বিভিন্ন দেশের টোয়েন্টি-২০ লিগ ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটের ক্ষতি করছে। কথাটা ভুল বলেননি ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই সাবেক অধিনায়ক। কিছুদিন আগেই ক্রিকেটারদের সাথে চুক্তি করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড। অনেকেই বোর্ডের চুক্তিতে সই করতে অস্বীকার করেছেন, কোনো কোনো ক্রিকেটার আবার শর্ত চাপিয়েছেন। যেমন আরভিন লুইসের মতো ব্যাটসম্যান বোর্ডের চুক্তিতে সই করেননি। আসলে টোয়েন্টি ২০ ক্রিকেটের মোহ কাটাতে পারছেন না কেউ। ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটে এটা চরম ক্ষতি করছে। ইয়ান বিশপের মতো সাবেক তারকার মুখেও একই কথা শোনা গেছে। ওরা একমত, বোর্ডের এই ব্যাপারে কড়া হওয়া উচিত।

শারজাতে শুরু হয়ে গেছে আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগ। পাঁচটি দল নিয়ে এই প্রতিযোগিতা। বালখ লেজেন্ডসের হয়ে খেলবেন ক্রিস গেইল। ২১ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে এই প্রতিযোগিতা। ওই দিনই আবার ভারত–ওয়েস্ট ইন্ডিজ একদিনের সিরিজ শুরু। তা সত্ত্বেও আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগে খেলার জন্য ক্রিস গেইলকে অনুমতি দিয়েছে ক্যারিবিয়ান ক্রিকেট বোর্ড। যদিও টোয়েন্টি-২০ সিরিজ খেলবেন কিনা, তা এখনও পরিষ্কার নয়।

গেইলকে ছাড়পত্র দেয়ার পেছনে কারণও রয়েছে। ২০১৯ বিশ্বকাপের জন্য তার কথা ভাবছে না ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড, এখন থেকেই তরুণদের সুযোগ দিয়ে দল তৈরি করে নেয়ার পক্ষপাতি তারা। গেইলের মাথায় অবশ্য ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের কথা রয়েছে। ভারতের বিরুদ্ধে একদিনের সিরিজ না খেললেও, পরের বছর ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজে খেলবেন।

একদিনের সিরিজ থেকে নিজেকে সরিয়ে নেয়ার প্রসঙ্গ তুলতেই কার্ল হুপার বলছিলেন, ‘‌বলছিলাম না, টি-২০ ক্রিকেট ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটের ক্ষতি করছে। এই তো তার জ্বলন্ত প্রমাণ। একজন ক্রিকেটার দেশের হয়ে না খেলে টি ২০ লিগ খেলতে চলল। আর বোর্ডও তাকে অনুমতি দিল। গেইলের মতো সিনিয়র ক্রিকেটার যদি এইরকম করে, জুনিয়ররা তো অনুসরণ করবেই। বোর্ড যদি কড়া না হয়, ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটের দুর্দশা কাটবে না।’

হুপার মনে করেন, আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগ খেলে অনায়াসে একদিনের সিরিজ খেলতে পারে। তিনি যে যুক্তি দিলেন, অগ্রাহ্য করার মতো নয়, ‘‌অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডের ক্রিকেটার কি আইপিএল খেলে না?‌ দেশের খেলা থাকলেই ওরা কিন্তু আইপিএলের মাঝপথে চলে যায়। গেইলেরও তো একদিনের সিরিজ খেলতে কোনো অসুবিধা নেই।’‌

রিকার্ডো পাওয়েল, ইয়ান বিশপরাও বিষয়টা মানতে পারছেন না।‌ বিশপ বলছিলেন, ‘‌টি-২০ লিগই ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটের ক্ষতি করছে। যতদিন টি-২০ লিগ ছিল না, ক্রিকেট বিশ্বকে আমরা শাসন করে এসেছি। টি-২০ লিগ আসার পর সবাই অর্থের পেছনে ছুটছে। দেশের কথা কেউ ভাবছে না। বোর্ডের কঠোর হওয়া উচিত।’‌

এদিকে, ভারতের কাছে তিন দিনের কম সময়ে বিধ্বস্ত হওয়ায় হতাশ ক্যারিবিয়ান শিবির। কেন এই বিপর্যয়?‌

স্টপগ্যাপ অধিনায়ক কার্লোস ব্রেথওয়েট বলছিলেন, ‘‌খারাপ শট আর পার্টনারশিপ গড়ে তুলতে না পারাতেই বিপর্যয়ে পড়তে হয়েছে। ব্যাটসম্যানদের শট নির্বাচনে ভুল হয়েছে।’‌

দুই ইনিংসেই একটু বেশিই আক্রমণাত্মক দেখা গেছে ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যানদের। টেস্টেও কেন এই ধরনের মানসিকতা?‌

ব্রেথওয়েট বলছিলেন, ‘‌আমাদের পরিকল্পনাই ছিল অ্যাটাকিং শট খেলা। তবে সব বলেই নয়, বাজে বল পেলেই অ্যাটাক করব। এই মানসিকতা নিয়েই খেলতে নেমেছিলাম। তবে ডিফেন্সে যে আমাদের আস্থা নেই, সে কথা বলব না।’‌

জোসেফ গ্যাব্রিয়েল চোট পেয়েছেন। পরের টেস্টে তাকে পাওয়া যাবে কিনা, এখনও নিশ্চিত নয়। যেমন নিশ্চিত নন অধিনায়ক জেসন গাব্রিয়েল। তবে কেমার রোচ দলের সাথে যোগ দিচ্ছেন। তাতেও কি দুর্দশা কাটবে ক্যারিবিয়ানদের?‌

পাঠকের মন্তব্য
লগইন করুন
লগইন মনে রাখুন